থ্রিডি ষ্টুডিও ম্যাক্সে ফটোরিয়ালিসটিক বাড়ি তৈরীর জন্য করনীয়

ফটোরিয়ালিসটিক অর্থ যেটা দেখে মনে হবে ফটোগ্রাফ। থ্রিডি মডেল ব্যবহার করে আপনি এমন বাড়ি তৈরী করবেন যে বাড়ির ছবি উঠানো সম্ভব না কারন সেই বাড়ির বাস্তব অস্তিত্ব নেই। যেমন তৈরী হওয়ার আগেই কোন বাড়ি। যদিও বাড়ি উল্লেখ করা হচ্ছে বাস্তবে সেটা আবাসিক বাড়ি না হয়ে বানিজ্যিক ভবন, মসজিদ, হাসপাতাল, ষ্টেডিয়াম কিংবা এদের সন্মিলিত কিছু হতে পারে। একে ধরনের ভবনের একেক ধরনের বৈশিষ্ট বিদ্যমান। আপনি যখন মডেল তৈরী করবেন তখন মসজিদ দেখে মসজিদ মনে হতে হবে, হাসপাতাল দেখে হাসপাতাল মনে হতে হবে।
থ্রিডি ষ্টুডিও ম্যাক্স এধরনের এক্সটেরিয়র ডিজাইনের জন্য অত্যন্ত জনপ্রিয় সফটঅয়্যার। সরাসরি ফটোরিয়ালিষ্টক বাড়ি তৈরীর কাজে হাত দেয়ার আগে কিছু প্রাসংগিক বিষয়ের দিকে দৃষ্টি দেয়া যাক।
থ্রিডি ষ্টুডিও ম্যাক্সে মডেলিং এর অনেকগুলি পদ্ধতি রয়েছে। সাধারনভাবে বলা হয় কোন বিশেষ ধরনের মডেল তৈরীর জন্য কোন বিশেষ পদ্ধতি সুবিধেজনক হলেও এমন নিয়ম নেই যে সেই পদ্ধতিতেই করতে হবে। একই মডেল তৈরীর জন্য একজন বক্স মডেলিং পদ্ধতি ব্যবহার করতে পারেন, আরেকজন ব্যবহার করতে পারেন নার্বস।
বাড়ি তৈরীর ক্ষেত্রে পার্থক্য আরো বেশি। কেউ সরাসরি ম্যাক্সেই কাজ করেন, কেউ অটোক্যাড বা ইলাষ্ট্রেটর ব্যবহার করে মুল নকসা তৈরী করে তাকে ব্যবহার করেন ম্যাক্সে। কেউ কেউ বাড়িয়ে বলেন ম্যাক্স শেখার আগে অটোক্যাড শেখা প্রয়োজন। যদি এমন কথা শুনে থাকেন তাহলে জেনে রাখুন, অটোক্যাড জানা থাকলে ম্যাক্স ব্যবহারে সুবিধে পাবেন একথা ঠিক তাইবলে ম্যাক্স শেখার জন্য অটোক্যাড শিখতে হবে এটা অতিকথন। দুইয়ের উদ্দেশ্য ভিন্ন। অটোক্যাড পুরোপুরি টেকনিক্যাল কাজের জন্য। অন্যদিকে ম্যাক্সে দেখার সৌন্দর্যই প্রধান। যদি দেখে সুন্দর মনে হয় তাহলে আরকিছু ভাবার প্রয়োজন নেই। ফলে সৌন্দর্য বাড়ানোর জন্য অনেকসময় এমন থ্রিডি বাড়ি তৈরী করা হয় যা বাস্তবে হয়ত কেউ তৈরী করবেন না। অটোক্যাড যদি আপনার বিষয় না হয় তাহলে ম্যাক্স ব্যবহারের জন্য অটোক্যাড শিখতে যাবেন না। নতুন ভার্শন অটোক্যাডে থ্রিডি মডেল-রেন্ডারিং সবই করা যায়। যদি অটোক্যাড ব্যবহার করেন তাহলে সেখানেই কাজ করতে পারেন।
ম্যাক্সের কাজে নিখুত নকশা মেনে কাজ করা যেহেতু ততটা গুরুত্বপুর্ন না, বরং সুন্দর করাই লক্ষ্য সেকারনে এক্সটেরিয়ার (বা ইন্টেরিয়র) ডিজাইনের ক্ষেত্রে কিছু বিশেষ পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়। ম্যাক্সের নিজস্ব সাধারন লাইট থেকে রেন্ডারিং করে খুব ভাল ফল পাওয়া যায় না। অন্যকথায় ঝকঝকে কিছু পাওয়া যায় না। এজন্য ম্যাক্সে এডভান্সড লাইটিং এর ব্যবহার রয়েছে। বাস্তবে অনেকেই পছন্দ করেন ভি-রে (Vray) নামে একটি প্লাগইন সফটঅয়্যার। এর মাধ্যমে সত্যিকারের আলোছায়ার খেলা দেখানো যায়। ঝকঝকে কাচ, সেখানে প্রতিফলিত আলো, মাঠের রৌদ্রছায়া ইত্যাদি আকর্ষনীয়ভাবে দেখানোর জন্য এটা ব্যবহার করতে পারেন।
বাড়ির সাথে আশেপাশের দৃশ্যটিও গুরুত্বপুর্ন। যেমন গাছপালা, ঘাসযুক্ত মাঠ, লেক বা জলাশয় ইত্যাদি। বাড়িটিই যেহেতু মুখ্য সেহেতু মডেলার বা এনিমেটর একাজগুলি সহজে করে নেয়ার জন্য তৈরী কিছু সফটঅয়্যার বা মডেল ব্যবহার করেন। গাছপালা তৈরীর জন্য একাধিক জনপ্রিয় প্লাগইন রয়েছে। সরাসরি নির্দিষ্ট গাছ বসিয়ে দিতে পারেন, সেগুলি (বাতাসের প্রভাবে) এনিমেট করা যাবে। Tree-storm এধরনের জনপ্রিয় একটি প্লাগইন। এতে শতশত ধরনের গাছ রয়েছে। আর্কভিশনের (আর্কিটেকচারাল ভিশন) আরপিসি (Real Photorealistic Content) নামে অনেকগুলি তৈরী মডেল রয়েছে। বিভিন্ন ধরনের গাছপালা, ঘাস-লতা থেকে শুরু করে নানা ভঙ্গির মানুষ, নানাধরনের গাড়ি ইত্যাদি সরাসরি ব্যবহার করতে পারেন। তৈরী মডেল থেকে এর পার্থক্য হচ্ছে এগুলি ইমপোর্ট করে ব্যবহার করা হয় না, বরং বিশেস পদ্ধতি ব্যবহার করে আপনার সিনের মধ্যে পছন্দমত কিছু তৈরী করে নেয়া। শুধুমাত্র সঠিক যায়গা, মাপ এবং অন্যান্য বৈশিষ্ট পরিবর্তন করে নিলে সেটা আপনার নিজের তৈরী মডেলের মত কাজ করবে।
এছাড়া আকাশ, মেঘ, সমুদ্র, আলোর ইফেক্ট ইত্যাদি তৈরীর জন্য Dreamscape বা এধরনের প্লাগইন ব্যবহার করতে পারেন।
মোটকথা যে কাজগুলি তৈরী পাওয়া যায় সেগুলি অন্য সফটঅয়্যার ব্যবহার করে সহজে ব্যবহার করুন, মুল শ্রম ব্যয় করুন মুল মডেল তৈরীতে। এগুলি ব্যবহারের সুবিধে হচ্ছে যদি এগুলিকে আকর্ষনীয়ভাবে দেখাতে পারেন তাহলে মুল বাড়ির মডেলে সামান্য ত্রুটি থাকলেও সেটা দৃষ্টি এড়িয়ে যাবে।
আপনাকে যদি কেউ বাড়ির মডেল তৈরী করে দিতে বলেন, নিষ্চয়ই তিনি বাড়ির একটি নকসা এবং কিছু নির্দেশ দেবেন। যদি এবিষয়ে অভিজ্ঞ না হন তাহলে নকসা বোঝার চেষ্টা করুন। অবশ্য আপনি প্রকৌশলী দৃষ্টি নিয়ে দেখবেন না, দেখবেন শৈল্পিক দৃষ্টি নিয়ে। আপনার লক্ষ্য বাড়িটি দেখতে সুন্দর করা এবং বাড়িটি দেখে সেই নকসা (ফ্লোরপ্লান) অনুযায়ী তৈরী সেটা বুঝানো।
আরেকটি বিষয় গুরুত্বপুর্ন। আপনার মডেল  হয়ত ব্যবহার কবে প্রিন্ট করার কাজে (বিজ্ঞাপন বা সাইনবোর্ড-লিফলেট) অথবা এনিমেশনে (ক্লায়েন্টের কাছে জেনে নিন)। বাড়িটি ততটুকুই দেখা যাবে যতটুকু ম্যাক্সের ক্যামেরা ব্যবহার করে রেন্ডার করবেন। যদি পেছনদিক না দেখা যায় অকারনে সেদিকে সময় ব্যয় করবেন না।
আগামী টিউটোরিয়ালে নকসা অনুযায়ী থ্রিডি মডেল তৈরী দেখানো হবে।
Share this post :

Post a Comment

Note: Only a member of this blog may post a comment.