এডবি আফটার ইফেক্টস ব্যবহার করে বৃষ্টি তৈরী

ভিডিওতে ঝড়, বৃষ্টি, জলোচ্ছাস, তুষারপাত, আলোর ফুলকি, আগুন ইত্যাদির জন্য ম্যাক্স, মায়া ইত্যাদি থ্রিডি এনিমেশন সফটঅয়্যারের ব্যবহার এত বেশি যে অনেকসময় ধরেই নেয়া হয় এই কাজ করার জন্য থ্রিডি এনিমেশন সফটঅয়্যারই ব্যবহার করতে হবে। বাস্তবে এডবি আফটার ইফেক্টস ব্যবহার করেও বাস্তবসম্মত বৃষ্টি তৈরী করতে পারেন। সেখানে বৃষ্টির ফোটার পরিমান, আকার, রং, পতনের সময় ইত্যাদি যেমন ঠিক করে দেবেন তেমনি বৃষ্টি মাটিতে পড়লে কতটা লাফিয়ে উঠবে তারপর মিলিয়ে যাবে সেটাও নির্দিস্ট করে দিতে পারেন।
এধরনের কোন ইফেক্ট সাধারনভাবে পার্টিকেল নামে পরিচিত। আফটার ইফেক্টস এরসাথে বেশকিছু পার্টিকেল তৈরীর ব্যবস্থা দিয়ে দেয়া হয়। এছাড়া পৃথকভাবে প্লাগইন হিসেবে নানাধরনের সফটঅয়্যার  ব্যবহার করা যেতে পারে। এখানে পারটিকুলার (Particular) নামের প্লাগইন ব্যবহার করে বৃষ্টি তৈরীর পদ্ধতি উল্লেখ করা হচ্ছে। এই টিউটোরিয়াল মেনে কাজ করার জন্য আপনাকেও সফটঅয়্যারটি ইনষ্টল করে নিতে হবে।
প্রথমে ঠিক কি করা হবে সেসম্পর্কে একটু ধারনা নেয়া যাক।
এখানে পার্টিকেল হচ্ছে বৃষ্টির ফোটা। এগুলি তৈরী হবে এমিটার নামের যায়গা থেকে। একে মেঘের সাথে তুলনা করতে পারেন। এমিটার যত বড় হবে ততটা জুড়ে পার্টিকেল (বা বৃষ্টি) তৈরী হবে। এমিটারের বৈশিষ্ট পরিবর্তণ করে কি পরিমান বৃষ্টি তৈরী হবে ইত্যাদি ঠিক করা যাবে, পার্টিকেলের বৈশিষ্ট পরিবর্তণ করে সেগুলির আকার, রং ইত্যাদি ঠিক করা হবে।
বৃষ্টি মাটিতে পড়ার ইফেক্ট দেখাতে গ্রাউন্ড নামে একটি লেয়ার ব্যবহার করা হচ্ছে।
.          নতুন একটি প্রজেক্ট/কম্পোজিশন শুরু করুন।
.          বৃষ্টির পানি মাটিতে পড়ে ফোটা তৈরী করার জন্য একটি সলিড লেয়ার তৈরী করুন (Layer – New – Solid, Ctrl+Y)। এর মাপ কম্পোজিশন থেকে অনেক বড় রাখুন। নাম দেয়া যাক গ্রাউন্ড।
.          একে থ্রিডিতে পরিনত করুন এবং থ্রিডি রোটেট করে মাটির সাথে মানানসই যায়গায় আনুন।
.          রেইন নামে কম্পোজিশনের মাপে আরেকটি লেয়ার তৈরী করুন।
.          সেখানে পার্টিকেল ইফেক্ট যোগ করুন (Effect – Trapcode – Particular)
.          পার্টিকেল এমিটারকে মান পরিবর্তন করে বড় করুন যেন পুরো কম্পোজিশন জুড়ে থাকে। এমিটার টাইপ Box হিসেবে ব্যবহার করুন এবং একে স্ক্রিনের ওপরের দিকে ষ্টেজের বাইরে রাখুন। অনেকটা পুরো যায়গার ওপর মেঘের মত।
.          ইফেক্ট এর ডিরেকশন Directional সেট করুন। এক্স ডিরেকশন -৯০ ডিগ্রী রাখুন, তাহলে তৈরী পার্টিকেলগুলি মাটির দিকে নেমে আসবে।
.          গতিবেগ (ভেলোসিটি), বৃষ্টির ফোটার পরিমান (রেট) ইত্যাদি পছন্দমত সেট করে নিন।
.          লেয়ারের জন্য মোশান ব্লার ব্যবহার করুন।

ইফেক্টস কন্ট্রোল প্যানেলে অক্স-সিষ্টেম বলে একটি মেনু রয়েছে। মুল এমিটার থেকে যেমন পার্টিকেল তৈরী করা হয়েছে তেমনি এখান থেকে আপনি পার্টিকেল কলিশন থেকে নতুন পার্টিকেল তৈরী করতে পারেন। যেমন বৃষ্টির ফোটা মাটিতে আঘাত করার পর কিছুটা লাফিয়ে উঠে শেষ হয়। এজন্য যে লেয়ার (এখানে গ্রাউন্ড) ব্যবহার করবেন তাকে থ্রিডি লেয়ার হতে হয়।
.          অক্স সিষ্টেমে Emit অংশে At Collision Event সিলেক্ট করুন।
.          Physics অংশে Air এর যায়গায় Bounce সিলেক্ট করুন।
.          Bounce অংশে Floor layer হিসেবে গ্রাউন্ড লেয়ার সিলেক্ট করুন। প্রিভিউ দেখুন। পার্টিকেল যেখানে গ্রাউন্ডে আঘাত করবে সেখান থেকে নতুন পার্টিকেল তৈরী হবে।
.          অক্স সিষ্টেমে পার্টিকেলের রং এবং অন্যান্য বৈশিষ্ট পরিবর্তন করুন।
.          Physics এর অধিন Bounce থেকে Collision Event জন্য Kill সিলেক্ট করুন। এরফলে বৃষ্টির মুল ফোটা কলিশনের পর মিলিয়ে যাবে। বাউন্স কতটুকু হবে সহ অন্যান্য বৈশিষ্ট পরিবর্তন করে নিন।
.          পার্টিকেলের সংখ্যা, গতি, আকার, রং ইত্যাদি পরিবর্তন করে এবং লাইট ব্যবহার করে সত্যিকারের বৃষ্টির ইফেক্ট তৈরী করা যাবে এভাবে।

মুল বিষয়টি এখানে খুব সংক্ষেপে উল্লেখ করা হল। বাস্তবে কাজ করার সময় আপনাকে বারবার বিভিন্ন সেটিং পরিবর্তন করে পরীক্ষা করে দেখা প্রয়োজন হতে পারে।
Share this post :

Post a Comment

Note: Only a member of this blog may post a comment.